Posted on

আপনি কি ওয়েব ডিজাইন শিখতে চাচ্ছেন?

আপনার কোনটি?

এখন আমি এমন একটি কৌশল শেখাবো যা আপনাকে একসাথে জনপ্রিয় হতে, অনলাইন এ আয় করতে এবং ওয়েব ডিজাইন শিখতে সাহায্য করবে। মানে একের ভেতর তিন আরকি। বিষয়টি খুব মজার, তাই না?

আপনি হয়ত ভাবছেন আমি টিউনটি তে ওয়েব ডিজাইন এর কিছু কৌশল নিয়ে আলোচনা করবো। কিন্তু আমি কিছু এমন কিছু কৌশল নিয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি যা সম্পূর্ণ ভিন্য এবং প্রচলিত ওয়েব ডিজাইন  শেখার কৌশল এর মত নয়।

আপনার কি এটি নিয়ে কোন ধারণা আছে?

লেখালেখি একটি একের ভেতর তিন পদ্ধতি যেটা নিয়ে আমি বলছিলাম। আমি বাজি ধরতে পারি যে অধিকাংশ পাঠক টিউনটি পড়ার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে, ঠিক যেই মুহূর্তে আমি বলেছি “লেখালেখি”। . খুব সামান্য অনন্য বেক্তিত্য এই আহ্বান টি গ্রহণ করবে এবং এই সুযোগ টিকে সকলের স্বপ্নের ওয়েব ডিজাইন পেশায় রূপান্তরিত করবে।

১০ টি মানসম্মত শব্দ ১ ডলার এর সমান

পড়তে থাকুন এবং টিউনটির শেষে ওয়েব ডিজাইন শিখতে এবং একই সাথে আয় করতে যা যা প্রয়োজন তা আপনি পেয়ে যাবেন।

মানুষ লেখালেখি কে এতো ভয় করে কেন?

অধিকাংশ মানুষ লেখালেখি কে খুব বিরক্তিকর কাজ ভাববে। অন্যরা ভাষা নিয়ে খুব ভয়ে থাকবে কারণ আমরা বাঙ্গালীরা বাংলা ভাষা শিখতেই নাকে দড়ি, ইংরেজি শেখার সময় কই? অনেক ভার্সিটির ছাত্র ও আছে যে কিনা ভালো মত ইংরেজিতে কথা বলতে পারে না।

আপনি যদি সঠিক রাস্তা বাছাই করেন, তবে আপনি খুব দ্রুতই বুঝে যাবেন ওয়েব ডিজাইন নিয়ে লেখালেখি খুব মজার একটি কাজ। আর আপনার সমস্যা যদি ভাষা হয় তবে নিয়মিত জনপ্রিয় ইংরেজি ব্লগ গুলো পড়ুন, ঘরে বাইরে সামন্য করে হলেও ইংরেজি চর্চা করুন। মনে রাখবেন “চর্চার কোন বিকল্প নেই” এবং “ইচ্ছে থাকলেই উপায় হয়”।

লেখালেখির জন্য আপনার কি ওয়েব ডিজাইন সম্পর্কে ধারণা থাকা প্রয়োজন?

আমি বলবো হ্যা এবং না।

একদিকে HTML এবং CSS সমন্ধে প্রাথমিক জ্ঞান থাকলে সেগুলো নিয়ে লেখা শুরু করতে পারেন। অথবা কোন ধারণা না থাকলে আপনি ওয়েব ডিজাইন শিখতে যেসব সমস্যা ও পরিস্থিতির সম্মুখীন হচ্ছেন তা নিয়েও লিখতে পারেন।

লেখালেখি একটি অনুসন্ধান, আপনি শুন্য থেকে শুরু করবেন এবং যেতে যেতেই শিখবেন।

– E. L. Doctorow

সুতরাং আপনি ওয়েব ডিজাইন শিখতে যেসব সমস্যা এবং পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছেন তা নিয়েই লেখা শুরু করে দিন। পাঠকরাও তাদের কিছু অনুরূপ অভিজ্ঞতা প্রদান করবেন এবং অভিজ্ঞরা আপনাকে ওয়েব ডিজাইন শেখার জন্য সঠিক দিক নির্দেশনা দিবে।

এমন একটি বিষয় নির্বাচন করুন যেটি আপনাকে সবচেয়ে বেশি আনন্দ দেয় এবং সে বিষয় এর উপর যত বেশি সম্ভব প্রবন্ধ,  টিউটোরিয়াল, বই ইত্যাদি পড়ুন। সেসব প্রবন্ধ, টিউটোরিয়াল বই থেকে অনুপস্থিত দিক গুলো চিন্তা করুন এবং সেগুলো নিয়ে একটি বিস্তারিত প্রবন্ধ তৈরি করুন।

যখন আপনি একজন লেখক এর লেখা নিবেন তখন সেটি লেখাচুরি, কিন্তু আপনি যখন অনেক লেখক এর লেখা নিবেন তখন সেটি গবেষণা।

– William Mizner

Write a comment